1. admin@metrobanglatv.com : metrobanglatv.com :
মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৪২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ডি-৮ সভাপতি হলেন শেখ হাসিনা- মেট্রো বাংলা টিভির স্টাফ রিপোর্টার ইলিয়াসের মসজিদের জন্য অনুদান প্রদান- ফেঞ্চুগঞ্জের বিয়ালীবাজারে বাসার ভাড়াটিয়া মহিলা সহ শিশু সন্তানকে মারধর করে বাসায় তালা দিলেন মালিকপক্ষ- বিস্ময়কর উদ্ভাবন; এক গাছের উপরে বেগুন, নিচে আলুু- নোয়াখালীতে কোভিড-১৯পরীক্ষার ফি জমার জন্য নগদের বুথ উদ্বোধন- ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের ধ্বংসযজ্ঞ পরিদর্শন করেন আইজিপি- বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন মামলার বিচার শুরু- স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান বর্জনের ঘোষণা মুক্তিযোদ্ধাদের- দৌলখাঁড় ইউপি নাঙ্গলকোট উপজেলা কুমিল্লার একটি মেয়ের নিখোঁজ সংবাদ- ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত-

নোয়াখালীতে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা করায় বাড়িছাড়া বাদী-

মোঃ সামছু উদ্দিন লিটন সহ-সম্পাদক,মেট্রো বাংলা টিভিঃ-
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২৩ মার্চ, ২০২১
  • ৭২ বার পড়া হয়েছে

নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চরক্লার্ক ইউনিয়নে তাছলিমা বেগম (২৬) নামে এক গৃহবধূকে বাড়িছাড়া ও তার পরিবারকে সমাজচ্যুত করার অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগীর অভিযোগ এলাকার কয়েকজন প্রভাবশালী তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করায় তিনি আদালতে মামলা করেন। আর এই মামলার কারণে আজ সে বাড়িছাড়া।
জানা গেছে, সুবর্ণচর উপজেলার চরক্লার্ক ইউনিয়নের মধ্য কেরামতপুর গ্রামের দুই সন্তান নিয়ে বসবাস করতেন ওই গৃহবধূ। স্বামী চট্টগ্রামের চাকরি করার সুবাদে তাকে দীর্ঘদিন পর্যন্ত কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিল একই এলাকার কেফায়েত উল্যাহ ও বাহার উদ্দিন। এর সূত্র ধরে গত বছরের ৮ আগস্ট সকাল ১০টায় তার বাড়িতে এসে ঘরে ডুকে কেফায়েত উল্যাহ ও বাহার গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। গৃহবধূর চিৎকারে তার বাবা এগিয়ে এলে কেফায়েত ছুরির হাতল দিয়ে গৃহবধূর মাথায় আঘাত করলে সে অচেতন হয়ে পড়ে। এসময় বাহার ও কেফায়েত তার বাবা সাহাব উদ্দিনকেও মারধর করে পালিয়ে যায়। পরে বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জানিয়েও কোন সমাধান না পেয়ে ওই নারী গত বছরের ১০ আগস্ট জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে একটি মামলা করেন। মামলাটি জুডিসিয়াল তদন্তের জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়। পরে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নবনীতা গুহ তদন্ত করে ১৬ সেপ্টেম্বর আদালতে প্রতিবেদন জমা দেন। এ ঘটনায় একাধিক তদন্ত হওয়ার পর আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে আদালত। পরে চলতি বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি পুলিশ কেফায়েত উল্যাকে গ্রেপ্তার করে। বর্তমানে সে জেলা কারাগারে রয়েছে।
গৃহবধূর অভিযোগ, মামলা করার পর থেকে কেফায়েত ও বাহারের লোকজন মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে তাকে হুমকি দিতে থাকে। কিন্তু কেফায়েত গ্রেপ্তারের পর তার মাত্রা আরও বেড়ে যায়। নিরুপায় হয়ে গত দুই মাস আগে এলাকা ছেড়ে বিভিন্ন জায়গায় পালিয়ে বেড়াচ্ছে সে।
ভুক্তভোগীর বাবা সাহাব উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, স্থানীয় দোকানপাটে আমাদের কাছে কোন পণ্য বিক্রি করতে নিষেধ করে দিয়েছে তারা। আমাদের বাচ্চাদের মসজিদ, মক্তবে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। এমনকি আমাকে গত ১২ মার্চ জুমার নামাজ পড়তে গেলে মসজিদ কমিটির লোকজন আমাকে মসজিদে যেতেও নিষেধ করে দেন। ১৯ মার্চ জুমার নামাজে গেলে মসজিদ কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ কমিটির লোকজন আমাকে মারধর করে গলা ধাক্কা দিয়ে মসজিদ থেকে বের করে দেয়।তিনি আরও অভিযোগ করেন, কেফায়েতকে গ্রেপ্তারের পর তার পক্ষে মসজিদ কমিটির সভাপতি এমলাক সওদাগর, সাধারণ সম্পাদক সোলেমান সওদাগরসহ সমাজপতিরা গত দুই সপ্তাহ আগে বৈঠক করে। এসময় সমাজপতিরা আদালত থেকে মামলা তুলে নিতে বলেন। না হলে আমরা থাকতে পারব না বলে সিদ্ধান্ত দেন।
মধ্য কেরামতপুর আহমদিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা মসজিদের ইমাম বলেন, তাদের সকল ধরনের সামাজিক আনুষ্ঠানিকতায় অংশগ্রহণে নিষেধ করা হয়েছে। তবে মসজিদে আসতে নিষেধ করা হয়নি। আমাদের এলাকায় ধর্ষণের কোন ঘটনা ঘটেনি। সড়কের পাশে সিমের বীজ বপনকে কেন্দ্র করে তাদের দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধ রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

আরো লেখাসমূহ

ওয়েবসাইট নকশা প্রযুক্তি সহায়তায় : মাল্টিকেয়ার

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত